প্রথমেই বলে রাখি, আমি বলিউড মুভির মোটেও ফ্যান নই, হঠাৎ করে কোন মুভি নিয়ে তীব্র আলোচনা কিংবা সমালোচনা হলে সেই মুভিটি দেখার আগ্রহ জাগে, তো মুভি গ্রুপ গুলোতে ঢু মারলে বেশ কয়েকমাস ধরেই পদ্মাবতী নিয়ে পোস্ট চোখে পরে, তাই বহুল আলোচিত এই মুভিটি দেখে রিভিউ লিখা শুরু করলাম, শুরুতেই বলে রাখি, রিভিউ জুড়েই স্পয়লার থাকবে, যদিও ইন্ডিয়ান মুভিগুলোতে স্পয়েল হওয়ার কিছু আছে বলে আমি মনে করিনা, যাই হোক সরাসরি মুভির রিভিউতে চলে আসি।

a

Padmaavat মুভি ইনফোঃ
Padmaavat (2018)
IMDB রেটিং – ৭.১
পার্সোনাল রেটিং – ৪

Padmaavat রিভিউঃ

এই মুভির বেশ কিছু রিভিউ দেখেছিলাম যেখানে লেখকরা কান্নাকাটি করে লিখেছেন এই মুভি নাকি তাদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছেন, এখানে নাকি এক মুসলিম শাসক কে অপমান করা হয়েছে, কি অপমান করেছে এটা দেখার জন্য একটু হাইপড ছিলাম, কিন্ত মুভির শুরুতেই সেই আশা নষ্ট হয়ে যায়, যখন মুভির শুরুতে এক ভদ্রলোক কে দারাজ কণ্ঠে বলতে শুনি ” মুভিটি নাকি মালিক মোহাম্মদ জয়সীর লেখা পদ্মাবতী নামক এক কবিতা থেকে অনুপ্রেরনা নিয়ে লিখা হয়েছে, এবং সেই কবিতাটিকে কাল্পনিক ধরা হয়, এছাড়া মুভির শুরুতেই বলে দেয়া হয়েছে মুভিটি কোন ডকুমেন্ট্রি নয় এবং বাস্তবতার সাথে মুভিটির কোন মিল নেই, মুভি শুরু করার আগেই বড়সড় এক ধাক্কা খেলাম !! তার মানে এতদিন এক কাল্পনিক জিনিষ নিয়ে গ্রুপে গ্রুপে ধর্মীয় অনুভূতি আর ইতিহাস বিকৃতি নিয়ে নাচানাচি করা হয়েছে !! হাউ লেইম 😑

যেহেতু মধ্যযুগীয় মুভি ছিলো, রাজা বাদশাদের মুভি ছিলো এবং ট্রেইলার দেখে ভারি যুদ্ধের আভাষ পাওয়া গিয়েছিলো তাই প্রত্যাশা ও বেশী ছিলো, আশা করেছিলাম কুটনীতি, চক্রান্ত, রাজ্য দখলের সুক্ষ বুদ্ধি, যুদ্ধনীতি, ব্যাটল সীন থাকবে বেশী বেশী (যেমনটি হলিউড মুভি, টিভি সিরিজে দেখা যায়), কিন্তু মুভিটা দেখে পুরাই হতাশ হতে হলো, তেমন কিছুই ছিলোনা মুভিটাতে, উলটা আমার মনে হয়েছে ৩ মিনিটের কাহিনীকে নাচ, গান, রোমান্স আর ডায়লগ দিয়ে ৩ ঘন্টার বানানো হয়েছে, ২১৫ কোটি দিয়ে এই মুভি বানিয়েছে বানসালী !!! সিরিয়াসলি!! গেম অফ থ্রোনের দিকে যাবোনা, ভাইকিংস এর এক এপিসোডে যতো ব্যাটল আর ভি এফ এক্স দেখায়, ৩ ঘন্টার এই মুভিতে তার ছিটাফোটা ও দেখা যায়নি।

মুভিতে পদ্মাবতী নামের এর মহা সুন্দরী মহিলা রয়েছে, এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন দিপিকা পাড়ুকোন, কিন্তু দিপিকাকে এই পদ্মাবতীর চরিত্রে কেনো অভিনয় করানো হলো তা আমার জানা নেই, কারন দিপিকা অতো আহামরি সুন্দরী কিছুনা, চরিত্রটিকে বাস্তবায়ন করার জন্য আরো সুন্দর এক অভিনেত্রী নিয়োগ করা উচিত ছিলো, রতন সীং এর ভূমিকায় ছিলেন শহীদ কাপুর, আমার ব্যক্তিগত মতামত হলো এই চরিত্রে আরেকটু লম্বা, হেবী ওয়েট কাউকে নেয়া উচিত ছিলো, তবে আলাউদ্দিন খিলজীর চরিত্রে রানভীর সীং কে আপ টু দ্য মার্ক লেগেছে, পুরো মুভিতে একমাত্র তার অভিনয় আমার ভালো লেগেছে। মালিক কাফুর নামের এক সমকামী চরিত্র ছিলো মুভিটিতে, এর অভিনয়, কথা বলার ভঙ্গি পুরাই বাজে ছিলো, জালাল উদ্দিন খিলজি, পুরোহিত রাঘব চেতন, এদের অভিনয় ও আশানুরূপ ছিলোনা।

মুভির কাহিনীতে চলে যাই, মুভির কাহিনী টি খুবই সরল সোজা, সিধা সাপ্টা আর একমুখি ধরনের, রতন সীং কোন এক মুক্তা খুজতে সিংঘাল এ গিয়ে পদ্মাবতীর দেখা পান, সেখানে তাদের ভালোবাসা হয়, রতন সাহেব ২য় বিবাহ করে পদ্মাবতীকে নিজ ডেরা চিত্তরে নিয়ে আসেন, সেখানকার এক পুরোহিত, ধর্মীয় গুরু, রাঘব চেতনের নজর এই পদ্মাবতীর উপর পরে এবং রতন সিং ও পদ্মাবতীর মিলনের রাতে সে উকি ঝুকি করে, সাজা হিসেবে তাকে শহর থেকে বের করে দেয়া হয়, তাই সে আঃ খিলজির সাথে যোগ দিয়ে রতন কে ফাসিয়ে প্রতিশোধ নেয়ার চেষ্টা করে, সে আলাউদ্দিন খিঃ কে ফুলিয়ে ফাসলিয়ে বলে পদ্মাবতী অনেক সুন্দর, এমন ভাবে রস মিশিয়ে বলে যে আলাউদ্দিন পদ্মাবতীর লোভে পরতে বাধ্য হয়, এবং চিত্তর আক্রমনে ও পদ্মাবতী হাসিলে রওনা দেন, প্রথম আক্রমনে ব্যর্থ হয়ে ৬ মাস চিত্তরের সামনে বসে থাকতে হয় তাকে, তারপর তিনি অন্য এক পরিকল্পনা করেন, রতনের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণভাবে দেখা করতে যান, তারপর তিনি রতন সিং কে চিত্তরে পাশে তৈরী তার তাবুতে আমন্ত্রন করেন, এবং রতন সিং এর ডেরায়, তার সৈন্যের সামনে আলাউদ্দীন খিলজী রতন সিংকে আটক করে নিয়ে যান, কিভাবে নিয়ে যান তা আজও বুঝতে পারলাম না, বোধয় উনার কাছে স্পেস স্টোন ছিলো 😒 মারাত্মক লেইম ছিলো জিনিষটা!!!! যাই হোউক তার পরে পদ্মাবতী তার স্বামীকে আলাউদ্দিন এর বিবির সহায়তায় গোপন সুরঙ্গ দিয়ে দিল্লি থেকে ছুটিয়ে চিত্তরে আনেন, এবং আলাউদ্দিন রেগে চিত্তর আক্রমন করেন, আশা করেছিলাম এবার সম্ভবত দুই দলের ভিতর আক্রমন পালটা আক্রমন, খুনাখুনি, রক্ত, লাশ, স্লোগান, তীরবাজী, অস্ত্রবাজী ইত্যাদি দেখবো, কিন্তু কিসের কি? আমার আশার আগুনে পানি ঢেলে দিয়ে আলাউদ্দিন আর রতন সিং একলা মুখোমুখি লড়াইয়ের সিদ্ধান্ত নিলো, যখন আলাউদ্দিন প্রায় হেরে যাচ্ছিলো তখন পিছন থেকে সেই সমকামী মালীক তীর ছুড়ে খেলা শেষ করে দিলো, ভালো একটা ফাইট সীন ও দেখতে পারলাম না 😡 রতন কে মেরে তারপর আলাউদ্দিন চিত্তরের দিকে পদ্মাবতী কে এক নজর দেখার জন্য ছুটে যেতে লাগলো কিন্তু পদ্মাবতী জ্বালাময়ী ভাষণ দিয়ে তার দলবল নিয়ে আগুনে ঝাপ দিলো, এবং আলাউদ্দিন খিলজির পদ্মাবতী কে হাসিল করার স্বপ্ন গুড়েবালি হলো 😒 ব্যাস মুভি শেষ, ছোট্ট এই কাহিনী দিলে বানশালী ৩ ঘন্টার এক মুভি বানালো!!!!

মুভিটির ইতিবাচক দিকের তুলনায় বেশ কিছু নেতিবাচক দিক আছে, যেমনঃ মুভিটির তেমন কোন বিশেষ কাহিনী ছিলোনা, সিজিয়াই এর কাজ বরাবরের মতোই বাজে ছিলো, বিশেষ করে মুভির শুরুতে উট পাখি আনার সিজিয়াই টি তারপর আলাউদ্দীন এর উপর কয়লা ছুড়ার দৃশ্যটি, আগুন লাগার দৃশ্য গুলো বাজে ছিলো, এছাড়া মুভিতে ভারী কোন ব্যাটল ছিলোনা, তেমন কোন বিশ্বাসঘাতকতা, ষড়যন্ত্র, টুইস্ট, থ্রিল, ক্লাইম্যাক্স ছিলোনা, পুরো মুভিটি পদ্মাবতী নামক এক নারী কেন্দ্রিক হওয়ার অনেকের মুভিটির প্রতি বিরক্তি ধরে যেতে পারে, তাই যারা বলিউডের তেমন ফ্যান না তাদের বলছি এই মুভিটি না দেখলেও তেমন কিছু মিস করবেন না।

আর যারা মুভিটি দেখে ইতিহাস, ধর্ম এসব নিয়ে কান্নাকাটি করেছেন আমি নিশ্চিত তারা হল প্রিন্ট দেখে লাফালাফি করেছিলেন, হলপ্রিন্টে সম্ভবত মুভির শুরুর সতর্কতা বানীটি ছিলোনা, বা তারা মিস করেছিলো, তাদের উদ্দেশ্যে বলি হলপ্রিন্ট দেখে অহেতুক এসব নেতিবাচক/ইতিবাচক রিভিউ দিয়ে এই ধরনের লুল মার্কা মুভিগুলোকে এতো প্রমোট/ হাইলাইট করবেন না, এই মুভি মেইন স্ট্রিমে আসার যোগ্য নয়!! সস্তা কাহিনীর দামি মুভি, আমি মুভিটি শেষ করে অবাক হয়েছি!!! এক নারীর জন্য এতো কিছু!! সিরিয়াসলি !!! এখনো “থ” মেরে বসেই রয়েছি!! এ কি ছিলো!! যাই হোক হলিউডে একটা জিনিষ লক্ষ্য করা যায়, হলিউডের অনেক পরিচালক, স্টুডিও, তাদের মুভিতে সস্তা ফেমিনিজম আরে রেসিজম কে পুজে করে মুভি প্রমোট করে, আর বলিউডের ক্ষেত্রে আমরা দেখি তারা ধর্ম আর জাতীয়তাবাদ কে পুজি করে মুভি প্রমোট করে, হাইলাইটে আলোচনা/সমালোচনায় আসতে চায়, এই টাইপের চর্চা হলিউড/ বলিউড কে দ্রুতই পরিত্যাগ করতে হবে, আর আমাদের ও ওইসব মুভির সস্তা আলোচনা থেকে নিজেদের বিরত রাখতে হবে, নাহলে ভালো ভালো মুভি গুলো এইসব মুভির নিচে চাপা পরে যাবে। ধন্যবাদ

হ্যাপি ওয়াচিং✌

মুভি রিভিউ লিখেছেনঃ Rafii Bhuiyan

TankiBazzবলিউড মুভি রিভিউPadmaavat
প্রথমেই বলে রাখি, আমি বলিউড মুভির মোটেও ফ্যান নই, হঠাৎ করে কোন মুভি নিয়ে তীব্র আলোচনা কিংবা সমালোচনা হলে সেই মুভিটি দেখার আগ্রহ জাগে, তো মুভি গ্রুপ গুলোতে ঢু মারলে বেশ কয়েকমাস ধরেই পদ্মাবতী নিয়ে পোস্ট চোখে পরে, তাই বহুল আলোচিত এই মুভিটি দেখে রিভিউ লিখা শুরু করলাম, শুরুতেই...