অলিম্পাস পর্বতের চূড়ায় অবস্থানকারী দেবদেবীদের ডাকা হতো অলিম্পিয়ান নামে। এরাই ছিলো গ্রীক মিথলজির মূল দেবদেবী। সবচেয়ে ক্ষমতাধর এবং এলিট গ্রুপ। প্রচলিত মতে, তারা ছিলো সংখ্যায় ১২ জন।

a

গ্রীক মিথলজির মিথ: অ্যারিস বনাম এথিনা

এরাই নিয়মিত কাউন্সিল মিটিংয়ে বসে আলাপ করতো মরণশীল মানুষেরা তাদের উপাসনা ঠিকঠাক মতো করছে কিনা, যুদ্ধদেবতা অ্যারিস মরণশীল মানুষগুলোকে নিয়ে নতুন করে কোনো ঝামেলা পাকালো কিনা- যেটা থেকে যুদ্ধ লেগে যেতে পারে, যুদ্ধ লাগলে কোন পক্ষে তাদের যাওয়া উচিৎ (যেমন- গ্রীস না ট্রয়) ইত্যাদি। মিটিংয়ের ফাঁকে হয়তো কানকথাও চালাচালি হতো (যেমন- জিউসের সাথে মেটিস নামে এক দেবীকে ঘুরতে দেখা গেছে, আফ্রোদিতিকে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় দেখা গেছে এডোনিস নামের এক মরণশীল মানুষের সাথে ইত্যাদি)। মোদ্দা কথা, এই ১২ জন দেবদেবীই ছিলো প্রচলিত মতে সবকিছুর দেখভালকারী এবং চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী। কিন্তু কারা এই ১২ জন অলিম্পিয়ান?

প্যাঁচটা আসলে সেখানেই। এই ১২ জন অলিম্পিয়ানদের নামের তালিকা করতে গেলে দেখা যাবে, একেকজন একেক তালিকা দিচ্ছে। খুব চেনা কিছু নাম বাদে বাকিগুলো ব্যক্তিভেদে পালটে যাচ্ছে। যেসব নাম সহজে পালটায় না, সেগুলোর মধ্যে আছে –

১। জিউস
২। হেরা
৩। পসাইডন
৪। ডিমিটার
৫। এথিনা
৬। অ্যাপোলো
৭। আর্তেমিস
৮। অ্যারিস
৯। আফ্রোদিতি
১০। হার্মিস

আর ব্যক্তিভেদে যেসব নাম পালটে যেতে পারে তালিকায়, সেগুলো হলো –
১১। হেইডিস
১২। হেফিস্টাস
১৩। ডায়োনিসাস
১৪। হেস্টিয়া

এর নানাবিধ কারণ আছে। যেমন-

প্রথমত, দেবদেবীদের এই এলিট কাউন্সিল আসলে পার্লামেন্টের মতোই একপ্রকার। এখানে বিভিন্ন ইস্যুতে ঝগড়া-মারামারি হয়, রাগ করে কেউ পদত্যাগ করে, সেখানে নিয়োগ পায় নতুন কেউ। যেমন- ঘর-গেরস্থালীর দেবী হেস্টিয়া একবার পদত্যাগ করেছিলো অন্যান্য দেবদেবীদের উপরে রাগ করে। পরে তার জায়গায় নিয়োগ দেয়া হয় ডায়োনিসাসকে। কিন্তু পদত্যাগ করলেও হেস্টিয়া সেরা অলিম্পিয়ান দেবদেবীর মর্যাদাই পায়। এদিকে ডায়োনিসাসকে অনেকেই সেরা অলিম্পিয়ান বলতে নারাজ গ্রীক মিথলজিতে তার তেমন প্রভাব না থাকায়।

দ্বিতীয়ত, ‘সেরা ১২ অলিম্পিয়ান দেবদেবী’ নামকরণ করা হলেও এই তালিকায় বিশাল ত্রুটি আছে। অনেকের ধারণা, হেইডিস অলিম্পিয়ানদের তালিকায় আসার যোগ্য না। কারণ সে পাতাল বা টারটারুসের বাসিন্দা। কিন্তু এদিকে তালিকায় আবার দেখা যায়, পসাইডনও আছে, যে থাকে সমুদ্রে। এই যুক্তিতে অনেকে পসাইডনের সাথে সাথে হেইডিসকেও তালিকায় রাখে। মূল কথা হলো, জিউস, পসাইডন এবং হেইডিস; এই তিনজনই ভাই। তিনজনই অলিম্পিয়ান।

তৃতীয়ত, শক্তিমত্তার ভিত্তিতে বিবেচনা করে তালিকা করলে অনেকে দুর্বল দেবতাদের বাদ দিয়ে দেয়। যেমন- হেফিস্টাস। হেফিস্টাসকে নিয়ে বেশ বিতর্ক আছে যে, সে ১২ অলিম্পিয়ানদের কাতারে পড়ে কিনা। যদিও তার স্ত্রী আফ্রোদিতি অলিম্পিয়ানদের তালিকায় সবসময়ই আছে, কিন্তু হেফিস্টাসের অবস্থান খুবই নড়বড়ে। অনেক সময় উপরের ২ নম্বর যুক্তিতে হেফিস্টাসকে তালিকা থেকে বাদ দিয়ে হেইডিসকে ঢুকানো হয়। যদিও বাস্তবে গ্রীসে হেইডিসের জন্যে উৎসর্গীকৃত কোনো মন্দির নেই, আছে হেফিস্টাসের জন্যে।

এতোসব ঝামেলার কারণে দেখা যায়, অনেকেই সেরা ১২ অলিম্পিয়ান দেবদেবীর তালিকার ব্যাপারে অবগত থাকলেও, কোন ১২ জন – সেই ব্যাপারে বেশ ভিন্নমত দেখা যায়। কারণ, গ্রীক মিথলজি অনুযায়ী ’১২ অলিম্পিয়ান’-এর সদস্য আছে ১৪ জন!

 

লিখেছেন – রিজওয়ানুর রহমান প্রিন্স

Searches related to Twelve Olympians (১২ ক্ষমতাধর অলিম্পিয়ান)
olympian gods and goddesses, 12 olympians family tree, olympian gods family tree, greek gods and goddesses list of names and powers1, greek gods and goddesses names8, hestia, zeus, hephaestus

TankiBazzমিথলজি12 olympians family tree,greek gods and goddesses list of names and powers1,greek gods and goddesses names8,hephaestus,hestia,olympian gods and goddesses,olympian gods family tree,Twelve Olympians,zeus,গ্রীক দেবীর ইতিহাস,গ্রীক পুরাণ,গ্রীক পুরাণের গল্প,জিউসের কাহিনী,হারকিউলি,হেরা
অলিম্পাস পর্বতের চূড়ায় অবস্থানকারী দেবদেবীদের ডাকা হতো অলিম্পিয়ান নামে। এরাই ছিলো গ্রীক মিথলজির মূল দেবদেবী। সবচেয়ে ক্ষমতাধর এবং এলিট গ্রুপ। প্রচলিত মতে, তারা ছিলো সংখ্যায় ১২ জন। গ্রীক মিথলজির মিথ: অ্যারিস বনাম এথিনা এরাই নিয়মিত কাউন্সিল মিটিংয়ে বসে আলাপ করতো মরণশীল মানুষেরা তাদের উপাসনা ঠিকঠাক মতো করছে কিনা, যুদ্ধদেবতা অ্যারিস মরণশীল...